ইজিবাইক নবায়ন ফি কমানোর দাবি


কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি:

করোনা পরিস্থিতি মানবিক বিবেচনায় কিশোরগঞ্জ শহরে চলাচলের জন্য নির্ধারিত ৬ শত টি ইজি বাইকের মনোগ্রাম নবায়ন ফি কমানোর এবং ইজিবাইক শ্রমিকের ত্রাণ সহায়তা প্রদান সহ ৫ দফা দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে পৌর ইজিবাইক মালিক সমবায় সমিতি।রবিবার (২৬ জুলাই) দুপুরে কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের গৌরাঙ্গ বাজার ১ টি অনলাইন দৈনিক কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন কিশোরগঞ্জ পৌর ইজিবাইক মালিক সমবায় সমিতি লিমিটেড’র সভাপতি মোঃরফিকুল ইসলাম। লিখিত বক্তব্যে বলা হয়,কিশোরগঞ্জ পৌর এলাকায় চলাচলের জন্য ২০১৭ সালে ইজিবাইক প্রতি ৬ হাজার ৫০ টাকা নিয়ে ৬ শত ইজিবাইক কে পৌর মনোগ্রাম দেয় পৌরসভা।

তখন পৌরসভার মনোগ্রাম নবায়নের কোন শর্ত না থাকলে ও পৌর কর্তৃপক্ষ বর্তমানে প্রতিটি ইজিবাইককের পৌর মনোগ্রাম ফি ৫ হাজার ১ শত টাকা ফি নির্ধারণ করেছে। অমানবিক এই ফি নির্ধারণ করে পৌর কর্তৃপক্ষ মনোগ্রাম নবায়নের জন্য চাপ সৃষ্টি করছে।

লকডাউনের কারণে দীর্ঘদিন শহরে ইজিবাইক চলাচল বন্ধ থাকায় এমনিতেই পরিবার পরিজন নিয়ে ইজিবাইক মালিক চালকেরা অতি কষ্টে দিনাতিপাত করছেন।এ পরিস্থিতিতে পৌর মনোগ্রাম নবায়নের এই মাত্রাতিরিক্ত ফি পরিশোধ করা তাদের পক্ষে একে বারেই অসম্ভব। তাই তারা পৌর মনোগ্রাম নবায়ন ফি কমিয়ে সবোর্চ্চ ২ হাজার টাকা করার দাবি জানিয়েছেন।

এছাড়া পৌর মনোগ্রাম নবায়নের জন্য আগামী ২০২১ জানুয়ারি পযর্ন্ত সময় নির্ধারণ,১ ব্যক্তির নামে ১ টি মনোগ্রাম দেওয়া এবং পৌর সভার বাইরের মালিকদের পৌর মনোগ্রাম বাতিল করে প্রকৃত পৌর বাসিন্দা অটো মালিকদের দেওয়া সহ নীতিমালা তৈরি করে মনোগ্রাম ক্রয়-বিক্রয় নিষিদ্ধ করা পৌর শহরের ট্রাফিক ব্যবস্হাপনা জেলা পুলিশের তত্ত্বাবধানে রাখা এবং করোনা দুযোর্গ ইজিবাইক শ্রমিকদের পৌরসভা থেকে ত্রান দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন তারা। সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মোঃআলমঙ্গীর ভূইঁয়া, সহ সভাপতি বাবুল মিয়া,কোষাধ্যক্ষ মাজহারুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।