ঈদে আগে বাড়ী যেতে বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে তীব্র যানজট

বিশেষ প্রতিবেদক:

প্রিয়জনের সঙ্গে কুরবানীর ঈদ বা ঈদুল আজহা করতে ঢাকা ছাড়তে শুরু করেছে মানুষ। সড়ক-মহাসড়কে বেড়েছে অতিরিক্ত যানবাহনের চাপ।

সেই সঙ্গে সড়কে বেড়েছে কুরবানির পশুবাহী গাড়ির সংখ্যা। এতে বঙ্গবন্ধু সেতুতে বড় বড় মহাসড়কে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

তেমনি ঈদে ঘরমুখো যাত্রীবাহী যানবাহনের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কেও তীব্র যানজট শুরু হয়েছে।

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরের গোড়াই থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পর্যন্ত ৬৫ কিলোমিটার রাস্তাজুড়ে এই যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

উত্তরবঙ্গ ও দেশের পশ্চিমাঞ্চলের জেলামুখি যাত্রীবাহী বাস, যাত্রীবাহী মাইক্রোবাস, পশুবাহী ট্রাকের সংখ্যা বেড়েছে কয়েকজন।

এতে বঙ্গবন্ধু সেতুর টোল আদায় কাজে বেড়েছে চাপ। পরিস্থিতি সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে সেতৃ কৃর্তপক্ষ।

জানা গেছে, শুক্রবার ভোর থেকে ৬৫ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে থেমে থেমে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন ঈদে ঘরমুখো মানুষ।

যাত্রীবাহী বাসের কয়েকজন চালক ও কনডাক্টর জানান, বৃহস্পতিবার রাত ১১টায় ঢাকা থেকে যাত্রা শুরু করেও অনেকেই সেতু পার হতে পারেনি। ঢাকা শহরে চলাচল করা অনেক বাস রিজার্ভ যাত্রী নিয়ে রওনা করেও যানজটে নাকাল।

সিরাজগঞ্জগামী বেশ কয়েকজন যাত্রী জানান, ঢাকা থেকে বাইপাইল পর্যন্ত আসতে সারারাত কেটে গেছে। এরপর থেমে থেমে যানজট। টাঙ্গাইলের গোড়াই থেকে পাকুল্লা পৌছতে প্রায় তিন ঘন্টা লেগে যাচ্ছে। তীব্র এই যানজটে বিপাকে পড়েছেন ঈদে ঘরমুখো যাত্রীরা।

এ প্রসঙ্গে আশেকপুর বাইপাসে দায়িত্বরত টাঙ্গাইল ট্রাফিক পুলিশের এক কর্মকর্তা জানান, মহাসড়কে ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকে থাকার মতো কোথাও যানজট নেই। তবে বঙ্গবন্ধু সেতু পারাপারের সমস্যাজনিত কারণে মহাসড়কে কিছু যানজট তৈরি হয়েছিল। পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক হয়ে যাচ্ছে।

দুরন্ত/৩১জলাই/পিডি