করোনায় দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় বাংলাদেশ সক্ষম

নিজস্ব প্রতিবেদক:

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানিয়েছেন, করোনার দ্বিতীযয় ঢেউ কখন শুরু হবে তা এখনো জানা নেই। তবে এটি মোকাবিলায় আমাদের সব ধরনের প্রস্তুতি রয়েছে। বাংলাদেশ সব সময় বিভিন্ন ঢেউয়ের মধ্যে অবস্থান করে। সুতরাং করোনার ঢেউ ভালোভাবে মোকাবিলা করতে পারব বলে আমি আশাবাদী।

আজ মঙ্গলবার রাজধানীর একটি হোটেলে ‘করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলা ও প্রস্তুতি’ শীর্ষক এক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হলে বাংলাদেশের প্রস্তুতি প্রসঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, মার্চে যখন প্রথম কোভিড দেশে আসে তখন বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশও পুরোপুরি প্রস্তুত ছিল না। এখন দেশের চিকিৎসক, নার্স ও মেডিকেল টেকনোলজিস্টরা অনেক প্রশিক্ষিত ও দক্ষ। দেশে করোনা পরীক্ষা কেন্দ্র এখন রয়েছে ১০৯টি। বর্তমানে দেশে আক্রান্ত বিবেচনায় মৃত্যু হার ১ দশমিক ৪৫ যা আক্রান্ত বিবেচনায় বিশ্বের বহু-দেশের নিচে রয়েছে।

ঢাকাসহ গোটা দেশের হাসপাতালেই করোনা মোকাবিলায় পর্যাপ্ত প্রস্তুতি নেয়া রয়েছে। কাজেই, শীতকালে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হলেও আতঙ্কিত হওয়ার সুযোগ নেই। আমাদের স্বাস্থ্য খাত এই ভাইরাস মোকাবিলায় এখন পুরোপুরি দক্ষ বলেও জানান মন্ত্রী।

দেশে ভ্যাকসিন আনা প্রসঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, ভ্যাকসিন নিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে আমাদের ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে।

বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ সোসিয়েশনের সভাপতি এম এ মুবিন খানের সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে আরও উপস্থিত ছিলেন দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান এমপি, সংসদ সদস্য ডা. আনোয়ার খান, প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক ডা. এ বিএম আবদুল্লাহ, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশিদ আলম, স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের মহাপরিচালক ড. এনায়েত হোসেন।

অনুষ্ঠানে ভার্চুয়াল মাধ্যমে বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগবিষয়ক উপদেষ্টা আহমেদ সালমান ফজলুর রহমান এমপি। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ডা. আনোয়ার খান এমপি এবং অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব হেলথ সায়েন্সের প্রাক্তন ভিসি অধ্যাপক ডা. লিয়াকত আলী।