চট্টগ্রাম কাস্টমসে ২০০ লট পণ্যের নিলাম প্রক্রিয়া শুরু

চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান:

চট্টগ্রাম বন্দরে বিভিন্ন সময়ে আটক ও বাজেয়াপ্ত, খালাসহীন অবস্থায় পড়ে থাকা প্রায় ২০০ লট পণ্য নিলামে বিক্রির প্রক্রিয়া শুরু করেছে চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউস কর্তৃপক্ষ। এরই মধ্যে নিলামের জন্য বিপুল পরিমাণ পণ্যকে প্রায় ২০০ লটের ক্যাটাগরি হিসেবে প্রস্তুত করে নিলামের ক্যাটালগ ও দরপত্র তৈরি করা হচ্ছে।

আজ মঙ্গলবার ক্যাটালগ ও দরপত্র চূড়ান্ত করে প্রিন্ট করা হবে এবং আগামীকাল বুধবার থেকে বিক্রি শুরু হবে। এই নিলাম আগামী ৭ নভেম্বর দুপুর আড়াইটায় চট্টগ্রাম ও ঢাকায় একযোগে অনুষ্ঠিত হবে।

চট্টগ্রাম কাস্টমস সূত্র জানায়, নিলামযোগ্য পণ্যের মধ্যে রয়েছে গাড়ি, স্টিল গুডস, গার্মেন্টস এক্সেসরিজ, বিভিন্ন প্রকার কাপড়, কেমিক্যালস, ইলেকট্রনিক ও বৈদ্যুতিক সরঞ্জামাদি, পেপার ও পেপার সামগ্রী, হার্ডওয়ার সামগ্রী, টেক্সটাইলসহ বিভিন্ন মেশিনারিজ, সিরামিক আইটেমসহ বিভিন্ন প্রকার মালামাল।

সরকারি নিলাম পরিচালনাকারী বেসরকারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স কে এম কর্পোরেশন এই নিলাম পরিচালনা করছে। আগামী ৬ নভেম্বর অফিস চলাকালীন সময় পর্যন্ত নগরীর মাঝিরঘাটের মেসার্স কে এম কর্পোরেশন অফিস থেকে নির্ধারিত মূল্য পরিশোধ করে ক্যাটালগ ও দরপত্র সংগ্রহ করা যাবে।

ওই ক্যাটালগ ও দরপত্র নিলামের দিন অর্থাৎ ৭ নভেম্বর দুপুর ২টার মধ্যে জমা দেয়া যাবে। এর ত্রিশ মিনিট পর দুপুর আড়াইটায় চট্টগ্রাম ও ঢাকায় একযোগে নিলাম কার্যক্রম শুরু হবে।

নিলামের দরপত্র জমা দেয়া যাবে, চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের রাজস্ব কর্মকর্তা (প্রশাসন) এর দপ্তরে, চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের দপ্তরে ও ঢাকার কাকরাইলে অবস্থিত শুল্ক আবগরী ও ভ্যাট কমিশনারেটের যুগ্ম-কমিশনার (সদর) এর দপ্তরে।

নিলামে অংশগ্রহণ করতে প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে দরপত্রের সাথে হালনাগাদ করা ট্রেড লাইসেন্স, ভ্যাট রেজিস্ট্রেশন সনদ, টিন সার্টিফিকেটের কপি দাখিল করতে হবে। এছাড়া ব্যক্তির ক্ষেত্রে জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি এবং হালনাগাদ টিন সার্টিফিকেটের কপি অবশ্যই দাখিল করতে হবে।

এছাড়া ক্যাটালগে বর্ণিত নিলাম সংক্রান্ত সকল শর্তাদি যথাযথভাবে পালন করতে হবে।

চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউসের ডেপুটি কমিশনার (নিলাম শাখা) ফয়সাল বিন রহমান দুরন্ত নিউজকে বলেন, চলতি বছরের ৭ম নিলামের জন্য কাস্টমস কর্তৃপক্ষ সব প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। নিলামের সিডিউল ও ক্যাটালগ তৈরি হচ্ছে। প্রায় ২শ লট পণ্য এবারের নিলামে বিক্রির পরিকল্পনা রয়েছে।

তবে লট সংখ্যা বাড়বে কি কমবে তা আজ শিডিউল তৈরি হলে শতভাগ নিশ্চিত হওয়া যাবে। নিলামে কেমিক্যাল ও পচনশীল পণ্যকে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। আগামী ৭ নভেম্বর চট্টগ্রাম ও ঢাকায় একযোগে নিলাম অনুষ্ঠিত হবে’।

নিলাম বিষয়ে মেসার্স কে এম কর্পোরেশন এর ম্যানেজার (নিলাম) মো. মোরশেদ জানান, এবারের নিলামে গাড়ি, স্টিল গুডস, গার্মেন্টস এক্সেসরিজ, বিভিন্ন প্রকার কাপড়, কেমিক্যালস, ইলেকট্রনিক্স ও বৈদ্যুতিক সরঞ্জামাদি, পেপার ও পেপার সামগ্রী, হার্ডওয়ার সামগ্রী, টেক্সটাইলসহ বিভিন্ন মেশিনারিজ, সিরামিক আইটেমসহ বিভিন্ন প্রকার মালামাল বিক্রি হবে। তবে খুব বিলাস বহুল না হলেও কয়েকটি গাড়ি নিলামে বিক্রির কথা রয়েছে’।