জাতীয় পার্টি প্রতিটি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে

নিজস্ব প্রতিবেদক:

জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান ও বিরোধী দলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ কাদের বলেছেন, জাতীয় পার্টি প্রতিটি নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করবে। কারণ, নির্বাচন হচ্ছে জাতীয় পার্টির কাছে অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক কর্মসূচি। নির্বাচনের মাধ্যমে তৃণমুল মানুষের কাছাকাছি যাওয়া সম্ভব।

তিনি বলেন, নির্বাচন নিয়ে মানুষের মাঝে অনাস্থা আছে। একদিকে নির্বাচন কমিশন বলছে নির্বাচন সুষ্ঠু হচ্ছে, কিন্তু সাধারণ মানুষ তা বিশ্বাস করতে চায়না। তাই, নির্বাচনকে বিশ্বাসযোগ্য করতে নির্বাচন কমিশনকেই দায়িত্ব নিতে হবে।

আজ দুপুরে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান-এর বনানী কার্যালয় মিলনায়তনে কক্সবাজার জেলা পেশাজীবী সমাজ-এর নেত্ববৃন্দের সাথে মতবিনিময় কালে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের একথা বলেন।

এসময় জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান আরো বলেন, ৯১ সালের পরবর্তী সরকারগুলোর শাসনামলে খুন, ধর্ষণ, চাঁদাবাজী ও টেন্ডারবাজীতে সাধারণ মানুষ বিরুক্ত। কিন্তু জাতীয় পার্টির শাসনামলে আইনের শাসন ছিলো, সুশাসন ছিলো সমাজের সর্বত্র। তাই সাধারণ মানুষের কাছে জাতীয় পার্টি অত্যান্ত গ্রহণযোগ্য রাজনৈতিক শক্তি। নির্বাচনকে সামনে রেখে দলকে আরো শক্তিশালী করতে নেতা-কর্মীদের প্রতি আহবান জানান জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান।

জাতীয় পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান আসিফ শাহরিয়ার-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় জাতীয় পার্টি মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু বলেন, দেশের যুব সমাজ পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ-এর উন্নয়ন ও সুশাসনের রাজনীতি দেখেনি। কিন্তু তারা পল্লীবন্ধুর অনন্য র্কীতি উপজেলা পরিষদ, যমুনা, ব্রীজ, মেঘনা ব্রীজ, বুড়িগঙ্গা ব্রীজসহ অসংখ্য উন্নয়ন কর্মকান্ড দেখছে। যুব সমাজ পল্লীবন্ধুর সংস্কারমূলক কর্মকান্ডে সুফল ভোগ করছে।

পল্লীবন্ধুর উন্নয়ন ও সুশাসনই জাতীয় পার্টির রাজনীতির ভিত্তি। তাই, পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের রাজনীতি তরুন সমাজের সামনে তুলে ধরে সংগঠিত করতে হবে। কারণ, উন্নয়ন, সামাজিক নিরাপত্তা ও সুশাসন নিশ্চিত করতে জাতীয় পার্টির বিকল্প নেই।

এসময় আরো বক্তৃতা করেন- প্রেসিডিয়াম সদস্য সাহিদুর রহমান টেপা, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ হেলাল উদ্দিন, মোঃ মিজানুর রহমান, ক্রীড়া সম্পাদক আহাদ চৌধুরী শাহীন, স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ও পেশাজীবী সমাজ আহবায়ক ডা: মোস্তাফিজুর রহমান আকাশ, যুগ্ম সাংগঠনিক সম্পাদক হেলাল উদ্দিন, যুগ্ম দফতর মাহমুদ আলম, জাতীয় ছাত্র সমাজের প্রচার সম্পাদক আতাউল্লাহ আরিফ। পেশাজীবী নেতা শাহাদৎ হোসেন, ডাঃ জাফর, ডাঃ ফাহিম, ডাঃ আফজাল, প্রিয়াংকা মুকুল।

কক্সবাজার জেলা পেশাজীবী সমাজের নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- এ্যাড. মোঃ আবু তৈয়ব, ডাঃ কাফিল উদ্দিন, মাওলানা আহসান হাবীব পারভেজ, শফিকুল ইসলাম, মিজানুর রহমান , আবুল কালাম, জসীম উদ্দিন, ওসমান গণি, নুরুল আমিন প্রমূূখ।