জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী বললেন, বাপেক্স নিয়ে হতাশার কথা

বিশেষ প্রতিবেদক:

বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম এক্সপ্লোরেশন অ্যান্ড প্রোডাকশন কোম্পানি (বাপেক্স) নিয়ে হতাশা প্রকাশ করছেন জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু। তিনি বলেন, প্রতিষ্ঠানটিকে শক্তিশালী হিসেবে গড়ে তুলতে চাইলেও কর্মীরা তা করে দেখাতে ব্যর্থ হয়েছেন।

শনিবার (৩ অক্টোবর) পাক্ষিক এনার্জি অ্যান্ড পাওয়ার আয়োজিত সাপ্তাহিক ‘ইপি টকস’ এ হতাশার কথা জানান তিনি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, এখানে আন্তর্জাতিক মানের কোনও কর্মী নেই। অতীতেও তেমন কেউ ছিলেন না। শুধু সরকারের কাছ থেকে অনুদান নিয়ে চলার চিন্তা বাদ দিয়ে স্বাবলম্বী হতে হবে।

তিনি বলেন, বাপেক্সের আবিষ্কৃত গ্যাস ক্ষেত্র বিদেশি কোম্পানির হাতে ছেড়ে দেওয়া, বাপেক্সকে কাজ করতে না দেওয়া, গ্যাস উন্নয়ন তহবিলের অর্থ অনুদানের বদলে ঋণ হিসাবে দেওয়া নিয়ে অনুষ্ঠানে বক্তারা সরকারের সমালোচনা করেন।

প্রতিমন্ত্রী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, বাপেক্সই একমাত্র প্রতিষ্ঠান যাদের কর্মীরা কাজ বাদ দিয়ে শুধু সমালোচনা করেন। সরকার বাপেক্সকে শক্তিশালী করতে কাজ করলো কিন্তু বাপেক্স শক্তিশালী হতে পারলো না। এই দায় কার সেটি চিন্তা করে না।

বাপেক্সের জন্য স্বতন্ত্র বেতন স্কেল করার দাবি প্রসঙ্গে বলেন, এটি বাপেক্স চায় কিনা সবার আগে সেই বিচার করতে হবে। টেংরাটিলা বিস্ফোরণে আদালত যখন প্রশ্ন করলো এখানে বিস্ফোরণ ঘটতে পারে এমন কথা তো বাপেক্সের এমডিও জানতেন। তাহলে তিনি কেন সই করছেন?

তখনকার এমডি আদালতকে বলেছেন, তিনি তো ভূতাত্ত্বিক। তিনি খনন প্রকৌশলী নন। এই হচ্ছে বাপেক্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালকদের অবস্থা।

বাপেক্সকে আন্তর্জাতিক কোম্পানিতে রূপান্তরের দাবি সম্পর্কে প্রতিমন্ত্রী বলেন, এজন্য যে দক্ষ জনবলের দরকার বাপেক্সে এখন তেমন কেউ নেই। অতীতে যারা কাজ করেছেন তাদের মধ্যেও কেউ নেই। বাপেক্স এর কূপ খনন করার মহাপরিকল্পনা তারাই দিয়েছিল। কিন্তু পরে দেখা গেলো তারা ড্রিলিং লোকেশনই দিতে পারে না।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, তারা যদি এমন কাজ করে তাহলে আমাদের কী করার আছে। রাজনৈতিক নেতারা তো ভূতাত্ত্বিক নয়।

মূল প্রবন্ধে বাপেক্স এর সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোর্তজা আহমেদ চিশতি ছাতকে গ্যাস উত্তোলনের ওপর জোর দেন। তিনি বলেন, এই ক্ষেত্র থেকে তৃতীয়মাত্রার জরিপ শেষে দ্রুত গ্যাস উত্তোলন প্রয়োজন। ক্রমান্বয়ে বিবিয়ানা গ্যাস উত্তোলন কমতে শুরু করেছে। এই ক্ষেত্রের গ্যাস কমে গেলে বিদেশ থেকে এলএনজি আমদানি করে চাহিদা মেটাতে হবে। এজন্য ছাতক গ্যাসক্ষেত্র থেকে উত্তোলনের উদ্যোগ নেওয়া উচিত।

তিনি বলেন, বাপেক্স এর ব্যবস্থাপনা কমিটির বেশিরভাগ সদস্যের কোনও কারিগরি জ্ঞান থাকে না। বাপেক্স বোর্ডে অভিজ্ঞদের নিয়োগ দেওয়ার ওপর জোর দেন তিনি। এজন্য বিভিন্ন ক্ষেত্রে পরামর্শক নিয়োগ এবং বাপেক্স এর দক্ষ জনবল নিয়োগ দেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

জ্বালানি বিশেষজ্ঞ ম. তামিম বলেন, আগে বাপেক্স কী করেছে সেই সমালোচনা করার কোনও মানে নাই। বরং আগামী দশ বছর বাপেক্স কী করবে তা নীতিনির্ধারকদের আগে ঠিক করতে হবে। তার ওপর নির্ভর করে বাপেক্স কাজের পরিকল্পনা করবে।

ইপি সম্পাদক মোল্লাহ আমজাদের সঞ্চালনায় এতে বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক বদরুল ইমাম, তিতাসের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোক্তাদীর আলি।

দুরন্ত/৩অক্টোবর/আইডি