‘ঢাকা-৫ আসনে উপনির্বাচন বিএনপির প্রার্থী একজন সন্ত্রাসী’

নিজস্ব প্রতিবেদক:

সবাইকে ভোট কেন্দ্রে গিয়ে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ঢাকা-৫ আসনের উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী কাজী মনিরুল ইসলাম মনু।

তিনি বলেন, বিএনপি প্রার্থী কোনো বাধার সম্মুখীন হননি। আমরা সুন্দর ও ভালো পরিবেশে নির্বাচন করছি। আমি শতভাগ নিশ্চিত জনগণের ভোটে আমি নির্বাচিত হব, ইনশাআল্লাহ।

শুক্রবার যাত্রাবাড়ী থানার ৬৩, ৬৪ ও ৬৫নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন জায়গায় গণসংযোগ ও পথসভায় অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন। এদিন কাজলা নতুন রাস্তায় ৬৩ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের প্রধান কার্যালয় উদ্বোধনের মধ্যদিয়ে গণসংযোগ ও পথসভা শুরু হয়ে কাজলার পাড়, কাজিরগাঁও, মৃধাবাড়ী, মাদ্রাসা বাজারে বিরতি দেন।

পরে কবরস্থান মসজিদে পবিত্র জুমআর নামাজ সম্পন্ন করে নেতাদের নিয়ে দুপুরের খাবার শেষে উত্তরপাড়া, কাউন্সিল, মেন্দিবাড়ী, কাঠেরপুল, ধার্মিক পাড়া, কোনাপাড়া, বাঁশেরপুল, শাহজালাল রোড, আলামিন রোড, রোকেয়া আহসান কলেজ, ফার্মের মোড়, মাতুয়াইল মেডিকেল, হাজী লতিফ ভূঁইয়া কলেজ, ধানবাড়ী, রায়ের বাগ দোতলা মসজিদ, তুষার ধারা হয়ে মুজাহিদ নগর এসে শেষ হয়।

গণসংযোগ ও পথসভায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সঙ্গে আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট সানজিদা খানম, নির্বাচনী আসনের প্রধান সমন্বয়ক ও যাত্রাবাড়ী থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ মুন্না, যুবলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন মহি, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাবেক সহদফতর সম্পাদক মিরাজ হোসেন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক গাজী সারোয়ার হোসেন বাবু, ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আনিসুর রহমান, ৪৮নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আবুল কালাম অনু, ৫১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর কাজী হাবিবুর রহমান হাবু, ৬৩নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শফিকুল ইসলাম দিলু, ৬৪নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মাসুদুর রহমান বাবুল মোল্লা, মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক নেতা এসকে বাদল, মাতুয়াইল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শান্ত নূর খাঁন শান্ত প্রমুখ।

যাত্রাবাড়ী থানার অন্তর্গত বিভিন্ন এলাকার গণসংযোগকালে অন্তত ২০টি স্থানে সংক্ষিপ্ত পথসভায় অংশ নেন নৌকার প্রার্থী কাজী মনিরুল ইসলাম মনু। এ সময় তিনি বলেন, ঢাকা-৫ এর উপনির্বাচনকে হাল্কা করে দেখার সুযোগ নেই। বিএনপির প্রার্থী একজন সন্ত্রাসী, ভূমি দখলকারী ও সন্ত্রাসের গডফাদার। যিনি দল সরকার থাকা অবস্থায় এমপি হিসেবে নিজস্ব সন্ত্রাস বাহিনী গড়ে তুলে এলাকার মানুষের বিভিন্নভাবে ক্ষয়ক্ষতি করে জীবন চলার পথকে থমকে দিয়েছিলেন।

তিনি আরও বলেন, বিদ্যুৎ, গ্যাসসহ বিভিন্ন সঙ্কটে সেসময় এই আসনের জনগণ বিরক্ত হয়ে তার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ করার উদ্দেশ্যে ঐক্যবদ্ধ হলে তার সন্ত্রাস বাহিনী তাদের হামলা করে। তাদের উপেক্ষা করে জনগণ তাকে এলাকা থেকে বিতাড়িত করেন। এরপর থেকে তিনি দৌড় সালাউদ্দিন হিসেবে পরিচিতি লাভ করেন। আগামী নির্বাচনে আপনারা মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের নৌকাকে বিজয়ী করে দৌড় সালাউদ্দিনের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে কড়া জবাব দিবেন।

এদিকে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর বিজয়ে ৬৯ ও ৭০নং ওয়ার্ডে সব নির্বাচনী কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত আহ্বায়ক এবং সদস্য সচিব নিয়ে ডেমরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নির্বাচনী সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী।

দুরন্ত/১০অক্টোবর/আইডি/এসএম