দ. আফ্রিকায় আজানে বিধি-নিষেধে খ্রিস্টান ও হিন্দুদের প্রতিবাদ

দুরন্ত ডেস্ক:

দক্ষিণ আফ্রিকার ইসিপিংগো শহরে আজানের ওপর বিধি-নিষেধ আরোপের প্রতিবাদ জানিয়েছে বিভিন্ন ধর্মের অনুসারী শতাধিক মানুষ। স্থানীয় মাদরাসা তালিমুদ্দিন ইসলামিক ইনস্টিটিউটের প্রতি সংহতি জানিয়ে তারা এই প্রতিবাদে অংশ নেয়।

গত সপ্তাহে আদালতের এক রায়ে প্রতিষ্ঠানটির আজানের শব্দের ওপর বিধি-নিষেধ আরোপ করা হয়। ডারবান হাইকোর্টের একজন বিচারক চন্দ্র ইলৌরির পক্ষে মত দেন, যিনি অভিযোগ করেছিলেন, আজানের শব্দ তাঁর ব্যক্তিগত সম্পদ ভোগ করা থেকে বঞ্চিত করছে।

আদালত বলেছিলেন, মাদরাসার আজানের শব্দ যেন ২০ মিটার দূরে অবস্থিত ইলৌরির বাড়ি পর্যন্ত না পৌঁছায়। আদালতের রায়ে দক্ষিণ আফ্রিকায় তীব্র প্রতিক্রিয়া হয়। আন্তর্জাতিক বহু গণমাধ্যমে সংবাদটি প্রকাশ পায়। রবিবার মসজিদের পক্ষে এবং আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের অংশ হিসেবে ‘দ্য ট্যাকটিশাল শুটিং টিম’-এর পক্ষে রিভাজ রামদাস ইসিপিংগো সৈকতে পথযাত্রা ও লাউডস্পিকারে আজানের আয়োজন করেন।

তিনি বলেন, ‘আদালতের নির্দেশনা আমাদের ক্ষুব্ধ, আহত ও হতাশ করেছে। কেননা তা একটি ধর্মকে খাটো করেছে। আমরা আমাদের মুসলিম ভাই-বোনদের বলতে চাই, আমরা তাদের সঙ্গে আছি। আমরা ইসিপিংগোজুড়ে পথযাত্রার এবং আজান বাজানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমাদের সঙ্গে শুধু একজন মুসলিম রয়েছে। বাকিরা খ্রিস্টান ও হিন্দু। পথযাত্রায় অংশ নেওয়া ছয়টি গাড়িতে ভিন্ন রকমের ছয়টি আজানের অডিও রেকর্ড বারবার বাজানো হবে। সূত্র : আইওএল