ধুনটে ১০৯ নম্বরের ফোন পেয়ে বাল্যবিয়ে বন্ধ

ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধি:

মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের জাতীয় হেল্প লাইন ১০৯ নম্বর থেকে ফোন পেয়ে বগুড়ার ধুনট উপজেলায় কণের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে বাল্যবিয়ে বন্ধ করে দিয়েছেন ভ্রাম্যমান আদালত। এ সময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত কণের মায়ের ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। বুধবার বিকেল ৫টার দিকে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভ‚মি) ও ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক আব্দুল্লাহ আল রনী এ দন্ডাদেশ দেন।

‘জানা গেছে, উপজেলার রাঙ্গামাটি দিদারপাড়ার রেজউল করিমের মেয়ে রাঙ্গামাটি বালিকা মাদরাসার ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী রিতু বেগমের (১২) পাশ্ববর্তি এলাঙ্গী-ফকিরপাড়ার আলম হোসেনের ছেলে সোহাগ মিয়ার (২০) সাথে বিয়ে ঠিক হয়। উভয় পরিবারের সিদ্ধান্ত মোতাবেক বুধবার বিয়ের আয়োজন করেন।

কনের বাড়িতে আয়োজন চলতে থাকে। সংবাদ পেয়ে ভ্রাম্যমান আদালতের টিম কণের বাড়িতে উপস্থিত হন।

এ সময় কণের বাবা কৌশলে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যান। তখন কনের মা মায়া খাতুন ভ্রাম্যমান আদালতে ১০ হাজার টাকা জরিমানা পরিশোধ করে মেয়েকে বাল্যবিয়ে দিবেন না মর্মে মুসলেকা লিখে দেন। তবে তখন পর্যন্ত বর ও তার পক্ষের লোকজন কণের বাড়িতে আসেননি।

এদিকে কণের বাড়িতে ভ্রাম্যমান আদালতের টিম হাজির হয়েছেন জেনে বর ও তার পক্ষের লোকজন রাস্তা থেকে ফিরে যান। এ সময় প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাল্যবিয়ে না করার জন্য মোবাইল ফোনের মাধ্যমে বর পক্ষকে নিষেধ করা হয়েছে।

ধুনট উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভ‚মি) ও ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক আব্দুল­াহ আল রনী এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মহোদয়ের নিকট ১০৯ নম্বর থেকে ফোন আসে। স্যারের নির্দেশে অভিযান চালিয়ে বাল্যবিয়ে বন্ধ ও কণে পক্ষের ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে এই অভিযান অব্যাহত থাকবে।