পুঁজিবাজারে আশায় ভরসা বাড়ছে!

নিজস্ব প্রতিবেদক:

করোনাতে বিপর্যস্ত পুঁজিবাজার চাঙ্গা হয়ে উঠেছে। করোনার কারণে পুঁজিবাজার নিয়ে যে শঙ্কা দেখা দিয়েছিল, তা কাটতে শুরু করায় আশা দেখছেন বিনিয়োগকারীরা।

গতকাল রবিবার পুঁজিবাজারে লেনদেন এক হাজার ১২৮ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। আর মূল্যসূচকের প্রায় ২০০ পয়েন্ট বৃদ্ধি চমক দেখিয়েছে।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, পুঁজিবাজার নিয়ে বিনিয়োগকারীদের অনাস্থা কেটে যাচ্ছে। বিশেষ করে সুশাসন প্রতিষ্ঠা এবং ভালো কম্পানির আইপিও আনতে নিয়ন্ত্রক সংস্থার কড়া অবস্থান এই ক্ষেত্রে বড় সহায়ক হয়েছে। নতুন নতুন বিনিয়োগকারী বাজারে আসায় লেনদেনে বড় উল্লম্ফন হয়েছে।

চলতি বছরের ৮ মার্চ দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ শনাক্ত হয়। অর্থনীতিতে বড় মন্দার শঙ্কায় মূলধন তুলে নিয়ে পুঁজিবাজার ছাড়তে হুমড়ি খেয়ে পড়েন বিনিয়োগকারীরা। উপর্যুপরি শেয়ার বিক্রির চাপে মূল্যসূচক ও বাজার মূলধন বিগত সাত বছর পেছনে ফিরে যায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সাধারণ ছুটির সময়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থার শীর্ষ পদে বড় রদবদল হয়।

চেয়ারম্যান ও কমিশনারদের মেয়াদ শেষ হওয়ায় নতুন চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাংকিং অ্যান্ড ইনস্যুরেন্স বিভাগের অধ্যাপক ড. শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম। একই সঙ্গে কমিশনার হিসেবে যোগ দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরো দুই অধ্যাপক।

নিয়ন্ত্রক সংস্থা সূত্রে জানা যায়, বিনিয়োগকারীদের আস্থাহীনতার মধ্যে পড়া পুঁজিবাজারে গতি ফেরাতে নানামুখী উদ্যোগ গ্রহণ করে শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলামের নেতৃত্বাধীন কমিশন। সুশাসন প্রতিষ্ঠায় কঠোর অবস্থান, কম্পানির উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের যথাক্রমে ২ ও ৩০ শতাংশ শেয়ার ধারণে কঠোরতা ও আল্টিমেটাম, দুর্বল কম্পানির আইপিও বাতিল এবং বন্ড মার্কেট সচল করতে উদ্যোগী হয় কমিশন।

বিএসইসি চেয়ারম্যান ড. শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম বলেন, ‘পুঁজিবাজার গতিশীল করতে নানামুখী উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বিনিয়োগকারীর আস্থা ফেরাতে কাজ করছে কমিশন। বিনিয়োগকারীর স্বার্থ রক্ষায় নানা পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। বিনিয়োগকারীরা পুঁজি বিনিয়োগ করে যেন ক্ষতির সম্মুখীন না হন, সে বিষয়ে জোর দেওয়া হচ্ছে।’

স্বাভাবিক সময়ে সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত পুঁজিবাজারে চার ঘণ্টা লেনদেন হয়। তবে মন্দাবস্থা কাটিতে ওঠার প্রাক্কালে পুঁজিবাজারে শেয়ার কেনাবেচা করতে বিনিয়োগকারীর আগ্রহ দেখা দেওয়ায় লেনদেনের সময় আধাঘণ্টা বাড়িযেছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) কর্তৃপক্ষ।

দুরন্ত/১০আগস্ট/পিডি