পুরান ঢাকায় আবারো ভোজন রসিকদের ভিড়

বিশেষ প্রতিবেদক:

রাজধানীর পুরান ঢাকা মানেই ১২ কিলোমিটার এলাকা। তবে এর মতভেদও আছে। কিন্তু এই ঢাকায় অবস্থানের মূল বিষয়ই হলো ঐতিহ্যবাহী খাবার। বহুযুগ পার করেও খাবারের স্বকীয়তা ধরে রেখেছে আগের মতোই। যার গ্রাহক রয়েছে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা, এমনকি সারাদেশ। করোনায় এ ব্যবসায় কিছুটা প্রভাব পড়লেও আবারো প্রাণ ফিরছে বলে জানান ব্যবসায়ীরা।

গভীর রাতে এখনও রান্নার কাজ চলছে। তা পুরান ঢাকার চাংখারপুল, নাজিরাবাজারের হোটেল ও দোকানগুলোতে সরেজমিনে গিয়ে দেখতে পাওয়া গেছে। এসব হোটেলে দম ফেলার সুযোগ নেই বেশিরভাগ হোটেলের শ্রমিকদের এমন কথায় জানান স্থানীয় আলমগীর নামের এক হোটেল বয়।

মূলত রাত ১২টার পর থেকে যানবাহনের চাপ কমে যওয়ায় আড্ডা জমান ভোজন রসিকরা। প্রতি বৃহস্পতিবার রাত থাকে সবচেয়ে জমজমাট। শুধু পুরান ঢাকার নয়, বন্ধু-স্বজন নিয়ে অনেকেই আসেন বিরিয়ানি, তেহারিসহ ঐতিহ্যবাহী মুখরোচক খাবারের স্বাদ নিতে। খাবার হোটেলের পাশাপাশি জুসবার থেকে শুরু করে খোলা থাকে প্রয়োজনীয় সব দোকানই।

করোনাভাইরাসের কারণে তিনমাস বন্ধ থাকার পর বেচা কেনা স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরছে বলে জানান ব্যবসায়ীরা। তবে আগের তুলনায় কমেছে গ্রাহক সংখ্যা। সময়ের আবর্তে পুরান ঢাকার অনেক কিছুই হারিয়ে গেলেও যুগ যুগ ধরে ঐতিহ্যবাহী খাবারগুলো টিকে রয়েছে ভোজনরসিকদের রসনা তৃপ্ত করতে।

দুরন্ত/৮অক্টোবর/পিডি