প্রকল্প প্রণয়নে অপ্রয়োজনীয় ব্যয় বন্ধের নির্দেশনা শিল্পমন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদক:

প্রকল্প প্রণয়নের ক্ষেত্রে অপ্রয়োজনীয় ব্যয় বন্ধের নির্দেশনা দিয়েছেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন এমপি। তিনি বলেন, প্রকল্পের ব্যয় নির্ধারণের সময় বর্তমান প্রয়োজন ও ভবিষ্যৎ সম্ভাবনা বিচার করে অর্থের সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।

শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন এমপি আজ শিল্প মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে প্রগতি টাওয়ার নির্মাণ (১ম সংশোধিত) প্রকল্পের আওতায় নির্মিতব্য ভবনের আর্কিটেকচারাল প্ল্যান পর্যালোচনাপূর্বক চূড়ান্তকরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসকল নির্দেশনা প্রদান করেন। শিল্প সচিব কে এম আলী আজমের সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার এমপি।

সভায় শিল্পমন্ত্রী প্রগতি টাওয়ার নির্মাণের জন্য ডিজাইনের কাজ দ্রুত সম্পাদন করে নির্মাণ কাজ শুরু করার তাগিদ দেন। সভায় বিদ্যমান ও সম্ভাব্য ভবিষ্যৎ চাহিদা এবং অর্থের সর্বোচ্চ ব্যবহার বিবেচনা করে ২৫তলা বিশিষ্ট প্রগতি টাওয়ার ভবনের নকশা প্রণয়ন এবং এরই আলোকে প্রকল্পের ব্যয় নির্ধারণের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। ভবনের নকশা প্রণয়নের ক্ষেত্রে বিধি অনুসরণ করে ভবনে সর্বোচ্চ পার্কিং ও গাড়ির আসা-যাওয়ার সুবিধা এবং অগ্নিনির্বাপণ ও প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় সবধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করার বিষয়ে গুরুত্বারোপ করা হয়।

উল্লেখ্য, রাজধানীর তেজগাঁও শিল্প এলাকায় বাংলাদেশ ইস্পাত ও প্রকৌশল কর্পোরেশনের নিয়ন্ত্রণাধীন প্রগতি ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের নিজস্ব জমিতে ৩টি ভবন বিশিষ্ট ১৪ তলার বাণিজ্যিক ভবন কাম সার্ভিস সেন্টার নির্মাণের লক্ষ্যে ১৭৯ কোটি টাকা ব্যয়ে ২০১৬ সালে প্রকল্পটি গৃহীত হয়। প্রগতি ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের নিজস্ব অর্থায়নে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

শিল্প প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিশ্বের উন্নত দেশগুলোর সুদৃশ্য ভবনের মত দৃষ্টিনন্দন করে প্রগতি টাওয়ার নির্মাণ করতে হবে। তিনি বলেন, প্রগতি টাওয়ার নির্মাণের ব্যয় পুনরায় পর্যালোচনা করা প্রয়োজন। প্রগতি টাওয়ারের বাংলাদেশ ইস্পাত ও প্রকৌশল কর্পোরেশনের কারখানাসমূহে উৎপাদিত পণ্য প্রদর্শন ও বিক্রয় কেন্দ্র স্থাপন করা হলে বাণিজ্যিকভাবে বাংলাদেশ ইস্পাত ও প্রকৌশল কর্পোরেশন ও প্রগতি ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড লাভবান হবে বলে প্রতিমন্ত্রী উল্লেখ করেন।

ডিজাইন এসোসিয়েটস লিমিটেডের স্থপতি আসিফ কাদের সভায় প্রগতি টাওয়ারের থ্রি-ডি আর্কিটেকচারাল ডিজাইন উপস্থাপন করেন। শিল্প মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সালাহউদ্দিন মাহমুদ, পরাগ, মোঃ হেলাল উদ্দিন এনডিসি, এ কে এম শামসুল আরেফীন, কাজী সাখাওয়াত হোসেন, ফৌজিয়া নাহার ইসলাম, প্রধান স্থপতি আ স ম আমিনুর রহমান, বাংলাদেশ ইস্পাত ও প্রকৌশল কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান মোঃ রইছ উদ্দিন, প্রকল্প পরিচালক দেবাশিষ সাহা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।