বাক প্রতিবন্ধী ছমিরের মায়ের আর্তনাদ

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি:

জন্মগত বাক প্রতিবন্ধী ছমির উদ্দিন। জন্মের পর থেকেই কোন কথা বলতে পারেননা যিনি। মনের চাওয়া বা আকাঙ্খা কাওকে বুঝাতেও পারেন না বাক প্রতিবন্ধী ছমির উদ্দিন।

যে কথা বলতে পারেনা, তার কোন শত্রু নাই। এমন একটি কথা সমাজে প্রচলন আছে। কিন্তু তাকে নিয়ে হাসি ঠাট্টা করার মত বন্ধুর অভাব নেই। কেউ তাদের নিয়ে চিন্তা করবে বা তাকে মানবিক দিক বিবেচনা করে তার না বলতে পারা চাওয়াটা মিটিয়ে দিবে এমন শুভাকাঙ্ক্ষী সমাজে বড়ই অভাব। তার পরেও এমন লোকদের জীবন থেমে থাকেনা। জীবন চলিয়ে নেয় সমাজের নিম্ন শ্রেণির সারিতে সাজিয়ে।

এমনি একজন ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার আচারগাও ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মৃত হাসেন আলীর পুত্র বাক্ প্রতিবন্ধী ছমির উদ্দিন।

ছোট বেলা থেকেই যে যা ইশারা ঈঙ্গিতে বলে তাই করতো। চিন্তা ছিলনা যার ভবিষ্যৎ নিয়ে। পিতা জীবিত থাকা কালিন পরিবারের খরচ চালিয়ে নিতো কোন ভাবে। কিন্তু ছমির উদ্দিনের পিতা মৃত্যুর পর পারিবারিক ভাবে খুব অসহায় হয়ে যায়। ভরনপোষণ না করতে পারায় বউ তাকে ছেড়ে চলে যায় বাবার বাড়ি। সংসারে আছেন এখন তার বৃদ্ধা মা আর বাক্ প্রতিবন্ধী ছমির উদ্দিন। নিজের নেই কোন আয়ের উৎস। নেই কোন নিজস্ব জায়গা। মাত্র ১ শতাংশ জমি সম্ভল তাও তার মায়ের পাওয়া ওয়ারিশ। সেই জায়গাটিতেই ছোট একটা কুড়ে ঘরে বেঁধে কোনরূপ চলছে তার জীবন।

জানতে চাইলে তার মা সাহেরা খাতুন বলেন, সংসারের অভাবের লাইগ্গা আমার আব্রা ছেরার বউডা গেছে গা। আব্রা অইলেও হে অহনো কোন সরহারি কিচ্ছুতা পায় না। আমারও কোন বয়ষ্ক ভাতা কার্ড অইছেনা ।থাকনের একটা ঘরও নাই। কেলা দিবো আমরারে এইতা??

এলাকার সচেতন মহলের দাবি, বাক্ প্রতিবন্ধী ছমির উদ্দিন ও তার বৃদ্ধা মায়ের জন্য একটি সরকারি ঘর সহ অনান্য সকল সুবিধা করে দিতে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান একেএম মোফাজ্জল হোসেন কাইয়ুম সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ একটি সুব্যাবস্থা করে দিবেন।