‘মৃত মানুষের বিদায়ে সম্মান পাওয়া তাঁর অধিকার’

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি:

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের (নাসিক) ১৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর করোনা জয়ী মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ বলেছেন, ‘করোনায় মানুষের মৃত্যু যখন বাড়তে থাকে তখন দেখি মানুষ তার পরিবার পরিজনকে এড়িয়ে যাচ্ছে। এমনকি যারা শশ্মানঘাটে লাশ দাহ করে এবং কবরস্থানে লাশ দাফনের কাজ করে তারা পর্যন্ত পালিয়ে যাচ্ছে। তখন আমার মনে হয়েছে যে এটা মানবিক সংকট।

তিনি বলেন, এই মানবিক সংকট মোকাবেলা করার জন্য আমি এবং আমার স্বেচ্ছাসেবক টিম মৃত মানুষের লাশ দাফন এবং দাহ করার কাজ শুরু করি। আমি মনে করি একজন মৃত মানুষের বিদায়বেলা সম্মান পাওয়া তাঁর অধিকার’।

মঙ্গলবার রাত ৮ টায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানা প্রেসক্লাব আয়োজিত ফেইসবুক লাইভ প্রোগামে এসব কথা জানান নাসিক ১৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ।

টিভি সাংবাদিক ও উপস্থাপক সৌরভ ইমামের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানটিতে অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন নাসিক ১০ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইফতেখার আলম খোকন ও নাসিক সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর (৭, ৮ এবং ৯নং ওয়ার্ড) আয়শা আক্তার দিনা।

লাইভ অনুষ্ঠানটিতে করোনা বীর খোরশেদ জানান, করোনা সারা পৃথিবীতে যেভাবে তান্ডব শুরু করেছিল, তার ধারাবাহিকতায় করোনা আমাদের দেশে আসতে পারে এমন মানসিক প্রস্ততি আমাদের মধ্যে ছিল। সেজন্য মানুষকে সচেতনতার বার্তা দেয়ার পাশাপাশি এখন অবধি মাঠে থেকে কাজ করে যাচ্ছি।

কাউন্সিলর ইফতেখারুল আলম খোকন বলেন, সারাবিশ্বের নেয় করোনা ভাইরাস বাংলাদেশে যখন আসি আসি ভাব তখন আমরা মানসিকভাবে তেমন প্রস্তুত ছিলাম না। আমার এই ১০ নং ওয়ার্ডে অনেক মিল কারখানা। এই মিল কারখানা চালু থাকলে কিভাবে কোন ভাইরাস থেকে রক্ষা পাবো সেটা প্রথমে আমি বুঝে উঠতে পারিনি। আমরা সর্বপ্রথম মিডিয়ার উদ্যোগে অল্প পরিসরে স্যানিটাইজার মানুষের হাতে পৌঁছে দিয়েছি। তারপর মানুষকে সচেতন করাসহ বিশেষ করে প্রতিটি মসজিদের মাইক দিয়ে মানুষকে সচেতন করার চেষ্টা করেছি। আল্লাহর অশেষ রহমতে আমার ওয়ার্ডে ২-৩ জন ছাড়া সবাই সুস্থ আছেন।

সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর আয়েশা আক্তার দিনা বলেন, গত ১৭ মার্চ থেকেই ভাইরাস সংক্রমণের ঘোষণা আসে সরকারিভাবে। প্রথমেই আমি আমার ৭,৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডের যতগুলো মাদ্রাসা ছিল সব মাদ্রাসাগুলোতে কোরআন খতম ও মসজিদে বিশেষ দোয়ার আয়োজন করি। তারপর মানুষকে সচেতন করার জন্য হ্যান্ড স্যানিটাইজার ,মাক্স ও লিফলেট বিতরণ শুরু করি।