মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় সম্মাননা পত্র পেয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক:

সম্মাননাপত্র পেল মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের বার্ষিক কর্ম সম্পাদন চুক্তি দক্ষতার সঙ্গে বাস্তবায়নের স্বীকৃতিস্বরূপ সম্মাননাপত্র পেয়েছে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়।

২০১৮-১৯ অর্থ বছরে বার্ষিক কর্ম সম্পাদন চুক্তি বাস্তবায়নে সরকারের সকল মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মধ্যে ৮ম স্থান অর্জন করায় মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় এ সম্মাননাপত্র পেয়েছে।

বৃহস্পতিবর (১৭ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত মন্ত্রণালয় ও বিভাগসমূহের ২০২০-২১ অর্থবছরের বার্ষিক কর্ম সম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে এ সম্মাননাপত্র গ্রহণ করেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ সচিব রওনক মাহমুদ।

পরে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্বাক্ষরিত সম্মাননাপত্রটি মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিমের হাতে তুলে দেন সচিব রওনক মাহমুদ।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব কাজী ওয়াছি উদ্দিন, শ্যামল চন্দ্র কর্মকার ও সুবোল বোস মনি, যুগ্ম সচিব মো. তৌফিকুল আরিফ ও শাহীন মাহবুবাসহ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী বলেন, ‘বার্ষিক কর্ম স্পাদনের সাফল্যের স্বীকৃতিস্বরূপ আমরা সম্মাননাপত্র পেয়েছি। এ কৃতিত্ব মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট সকলের। বার্ষিক কর্ম সম্পাদন চুক্তি বাস্তবায়নে প্রথম অবস্থান অর্জনে আমরা সচেষ্ট হবো। প্রতিকূলতা ও সমস্যা মোকাবিলা করে সামনে এগিয়ে যেতে হবে। যতক্ষণ দায়িত্বে আছি স্বচ্ছতা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করা উচিত।’

তিনি বলেন, ‘দরিদ্র্য, বেকারত্ব দূর এবং গ্রামীণ অর্থনীতির চাকা সচল করতে হলে বেকারদের উদ্যোক্তা হিসেবে তৈরি করতে হবে, তাদের স্বাবলম্বী করতে হবে। এজন্য শেখ হাসিনার কাছ থেকে শিক্ষা নিতে হবে যে কীভাবে দেশের উন্নয়নে নিজেকে নিবেদিত করা যায়।’