যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্টে বিচারপতি নিয়োগে ট্রাম্পের বিজয়

দুরন্ত ডেস্ক:

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্টে বিচারপতির শূন্য আসনে নিয়োগ পেয়েছেন অ্যামিন কোনি বারেট। দেশটিতে নির্বাচনের আগে একে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের জয় হিসেবে দেখা হচ্ছে।

মার্কিন সুপ্রিম কোর্টের প্রবীণতম বিচারপতি রুথ বেডার গিন্সবার্গের মৃত্যুর পর তার শূন্য আসন পূরণ করা নিয়ে বড় ধরনের রাজনৈতিক লড়াই শুরু হয়।

বিবিসি জানায়, সিনেটে ক্ষমতাসীন রিপাবলিকানদের ভোটে বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ পান বারেট। সোমবার রাতে হোয়াইট হাউসে ট্রাম্পের উপস্থিতিতে বিচারপতি হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন তিনি।

পরবর্তী প্রেসিডেন্টের শপথ গ্রহণ পর্যন্ত বিচারপতির আসনটি শূন্য দেখতে চেয়েছিল ডেমোক্র্যাটরা। তবে তৃতীয় বিচারপতি নিয়োগ দিয়ে সর্বোচ্চ আদালতে রক্ষণশীলদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা বিস্তৃত করলেন ট্রাম্প।

সিনেটে ৫২-৪৮ ভোটে বিচারপতি নির্বাচিত হন ৪৮ বছর বয়সী বারেট। তার নিয়োগের মাধ্যমে মার্কিন বিচার বিভাগের শীর্ষস্থলে উদারপন্থীদের বিপরীতে রক্ষণশীলরা আরও বেশি সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেল।

যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্টে ৫ জন রক্ষণশীল বিচারপতির বিপরীতে ৪ জন উদারপন্থী ছিলেন। গিন্সবার্গের মৃত্যুতে সেখানে উদারপন্থী বিচারপতির সংখ্যা ৩ জনে দাঁড়িয়েছিল। এখন রক্ষণশীলদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা ৬-৩ এ দাঁড়িয়েছে।

প্রেসিডেন্ট হিসেবে প্রথম মেয়াদে দায়িত্ব পালনরত অবস্থায় রক্ষণশীল দুই বিচারপতিকে আজীবনের জন্য সুপ্রিম কোর্টে নিয়োগ দেন ট্রাম্প।

২০১৭ সালে নিয়োগ পান বিচারপতি নিল গোরসুচ আর ২০১৮ সালে নিয়োগ পান বিচারপতি কাভানাহ।
পেনসিলভেনিয়ায় নির্বাচনী প্রচারণা শেষে হোয়াইট হাউসের শপথ অনুষ্ঠানে যোগ দেন ট্রাম্প। তিনি বলেন, ‘আজ যুক্তরাষ্ট্র এবং এর সংবিধানের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ দিন, আইনের সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ শাসনের জন্যও। ’

তিনি আরও বলেন, ‘তিনি (বারেট) আমাদের দেশের অন্যতম মেধাবী আইনী বিশেষজ্ঞ। দেশের সর্বোচ্চ আদালতে অসামান্য অবদান রাখবেন তিনি। ’

মার্কিন সুপ্রিম কোর্টের রক্ষণশীল বিচারপতি ক্লারেন্স থমাস তার নতুন সহকর্মীকে এদিন শপথ গ্রহণ করান।

দুরন্ত/২৭অক্টোবর/ডিপি