সহিংসতার ‘মদদদাতা’ মুফতি ইজহার

নিজস্ব প্রতিবেদক:

হেফাজত ইসলামের বিলুপ্ত কমিটির শিক্ষা ও সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক মুফতি হারুন ইজহারকে চট্টগ্রাম থেকে গতরাতে গ্রেফতার করে র‌্যাব। আজ বৃহস্পতিবার সংস্থাটি বলছে, হাটহাজারীতে সহিংসতার ‘মদদদাতা’ তিনি।

চট্টগ্রামের লালখান বাজারে অবস্থিত জামেয়াতুল উলুম আল ইসলামিয়া মাদ্রাসা থেকে হারুন ইজহারকে আটকের পর পতেঙ্গা র‍্যাব-৭ কার্যালয়ে নেয়া হয়। সেখানে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে র‍্যাব জানায়, জড়িত থাকার কথা স্বীকার করায় তাকে হাটহাজারীর সব মামলায় আসামি করা হবে।

র‍্যাব-৭-এর অধিনায়ক লে. কর্নেল মশিউর রহমান জুয়েল বলেন, হাটহাজারীতে ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগের মদদদাতা হারুন ইজহার আটকের আগ পর্যন্ত নজরদারিতে ছিলেন।

জিজ্ঞাসাবাদের পর হারুন ইজহারকে হাটহাজারী থানার সব মামলায় গ্রেফতার দেখানো হবে জানিয়ে তিনি বলেন, আজ বিকেলে আদালতে তোলা হবে তাকে। মামলাগুলো তদন্তের দায়িত্বে থাকা পুলিশ আদালতের প্রক্রিয়া চালাবে।

এদিকে, হারুন ইজহারের আইনজীবী আবদুস সাত্তার দাবি করেছেন, হাটহাজারীর ঘটনায় লালখান বাজারে থাকা হারুন ইজহার কোনোভাবেই জড়িত নন। রাজনৈতিক কারণে তাকে হয়রানি করতে এমন মিথ্যা মামলায় জড়ানো হচ্ছে।

ইসলামি ঐক্যজোটের (একাংশ) চেয়ারম্যান মুফতি ইজাহারুল ইসলামের ছেলে মুফতি হারুন ইজহার। তাকে এর আগেও বিস্ফোরক মামলায় ২০১৩ সালে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। বাবা-ছেলেকে আসামি করা মামলাটি এখনো বিচারাধীন রয়েছে।

ঢাকাসহ সারাদেশে হেফাজতের শীর্ষ নেতারা গ্রেপ্তার হলেও চট্টগ্রামের কোনো কেন্দ্রীয় নেতা আটকের ঘটনা এটিই প্রথম। যদিও হাটহাজারী ও পটিয়া থানায় দায়ের করা মামলায় এখন পর্যন্ত সংগঠনটির ৪০ জন নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

দুরন্ত/২৯এপ্রিল/পিডি