সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে নিঃশর্ত মুক্তি দেওয়ার দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক:

বাসদ(মার্কসবাদী) সাধারণ সম্পাদক কমরেড মুবিনুল হায়দার চৌধুরী আজ এক বিবৃতিতে দৈনিক প্রথম আলো’র অনুসন্ধানী সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে আটকে রেখে হেনস্থা ও অন্যায়ভাবে পুলিশে সোপর্দ করার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন এবং অবিলম্বে তার নিঃশর্ত মুক্তি ও গণমাধ্যম-মতপ্রকাশের স্বাধীনতা নিশ্চিতের দাবি জানিয়েছেন।

বিবৃতিতে তিনি বলেন, “অনুসন্ধানী প্রতিবেদন তৈরিতে যাওয়া সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে যেভাবে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে ৫ ঘণ্টা আটকে রেখে হেনস্থা ও পুলিশে সোপর্দ করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মিথ্যা মামলা দেওয়া হয়েছে, তা দেশবাসীকে হতবাক করেছে। রোজিনা ইসলামের উপর এই আক্রমণের ঘটনা চোখে আঙুল দেখিয়ে দিল যে, দেশে মতপ্রকাশের স্বাধীনতার চিহ্নমাত্র নেই। আমরা এই অন্যায়ের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।”

বিবৃতি তিনি আরও বলেন, “দেশে বর্তমান সরকার একটি ফ্যাসিবাদী শাসন কায়েম করেছে। হত্যা, লুটপাট, দুর্নীতি, দমন-পীড়ন বেড়ে চলেছে। করোনাকালে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে বড় বড় দুর্নীতির চিত্র সংবাদপত্রে উঠে এসেছে। রোজিনা ইসলাম এক্ষেত্রে সাহসী ভূমিকা রেখেছেন। তাঁর প্রতিবদেনে এসব দুর্নীতির চিত্র আমরা পাই। রিজেন্ট হাসপাতাল, জেকেজিসহ, করোনা হাসপাতাল উধাও হওয়ার ঘটনা-এসব ঘটনা যেন আর বেরিয়ে আসতে না পারে, তার জন্য সরকার ন্যূনতম সহিষ্ণুতাও দেখাতে রাজি না। তাই এটা শুধু রোজিনার উপর আক্রমণ নয়, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও গোটা দেশের মানুষের মতপ্রকাশের স্বাধীনতার উপর সরকারের ফ্যাসিবাদী আক্রমণেরই বহিঃপ্রকাশ।

জনগণের ম্যান্ডেট না নিয়ে ভোটডাকাতির মাধ্যমে গায়ের জোরে ক্ষমতায় জেঁকে বসা আওয়ামী সরকারের নৈতিক কোনো শক্তি নেই। ফলে যেকোনো আন্দোলন হোক, দুর্নীতির রিপোর্ট হোক-এসবে এখন তারা ভীত। ক্ষমতা হারানোর ভয়ে মানুষ হত্যা পর্যন্ত তার শাসনে জায়েজ হয়ে যাচ্ছে। বাঁশখালীতে পুলিশের গুলিতে শ্রমিক হত্যা, টঙ্গি ও তেজগাঁও-এ গার্মেন্টস শ্রমিকদের উপর পুলিশের গুলিবর্ষণ-এগুলোর কোনো বিচার আজও হয়নি। রোজিনা ইসলামের উপর সরকারের নির্যাতন, দেশে আরও যেসব নির্যাতন-নিপীড়ন প্রতিনিয়ত ঘটে চলেছে, তা থেকে বিচ্ছিন্ন নয়। ফলে দেশের সামগ্রিক সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে গেলে এই ফ্যাসিবাদী সরকারের বিরুদ্ধে দল-মত-পেশা নির্বিশেষে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।”

তিনি গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিত, মতপ্রকাশের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ বন্ধ ও অবিলম্বে রোজিনা ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান।