১০৩ বছর বয়সী বৃদ্ধার ইচ্ছা পূরণ!

দুরন্ত ডেস্ক:

বিচিত্র পৃথিবীর অনেকে অনেক কিছুই করেন। তবে তাদের চাহিদা একেক জনের একেক রকমের। আর ইচ্ছা, চাওয়া-পাওয়া সম্পূর্ণ ভিন্ন ভিন্ন। সেই ইচ্ছা যে সবার ক্ষেত্রে পূর্ণ হয় তা কিন্তু নয়, অনেকের জীবনে অপূর্ণ থেকে যায় তার দীর্ঘদিনের পালিত-পালিত স্বপ্ন বা ইচ্ছা। কিন্তু ১০৩ বছর বয়সে এসে এক নারী তার ছোট্ট অথচ প্রিয় ইচ্ছা পূরণ করতে পেরেছেন। সোশ্যাল মিডিয়ার বদৌলতে তার সেই কাহিনী এখন ভাইরাল।

আমেরিকার মিশিগানের বাসিন্দা ডরোথি পোলক, এই জুন মাসে ১০৩ বছরের জন্মদিন পার করলেন। কিন্তু সেদিন জন্মদিনের উৎসব করতে পারেননি তিনি। কারণ করোনা আক্রান্ত হয়ে মিশিগানের মাস্কেগনের একটি নার্সিংহোমে চিকিত্সাধীন ছিলেন। সেখানকার নার্সরা জানিয়েছেন, দীর্ঘদিন সবার থেকে বিচ্ছিন্ন থেকে তিনি মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন।

সম্প্রতি করোনাকে হারিয়ে ডরোথি বাড়ি ফেরেন। মহামারীর হাত থেকে বেঁচে যাওয়ায় এবার তিনি ভাবলেন দীর্ঘদিনের অপূর্ণ শখ পূরণ করবেন। তার ইচ্ছা ছিল, হাতে একটি পারমানেন্ট ট্যাটু করাবেন। কিন্তু মনের কোণে এই ইচ্ছা লালিত-পালিত হতে থাকলেও কয়েক দশক তা পূরণ করার সুযোগ হয়নি তার। এখন তিনি ঠিক করলেন সেই ইচ্ছা পূরণ করবেনই। যেমন ভাবা তেমন কাজ।

ডরোথির এক নাতনি টেরেসা সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, দাদীকে তারা এমন মনমরা হয়ে থাকতে আর কখনও দেখেননি। নার্সিংহোম থেকে ফিরেও তিনি যেন স্বাভাবিক হতে পারছিলেন না। তাই তারা দাদীর দীর্ঘদিনের ইচ্ছা পূরণের ব্যবস্থা নিবেন বলে ঠিক করলেন। সেই মতো দাদী ডরোথিকে এক ট্যাটু স্টুডিওতে নিয়ে যান। সেখানে একটি সবুজ রঙের ব্যাঙ আঁকা হয় তার হাতে।

ট্যাটু নিয়ে ডরোথির সেই খুশির ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন তার নাতনি। সেখানে বেশ উচ্ছ্বসিত ছিলেন তিনি। হাতে এমন একটা ট্যাটু করাতে পেরে খুশির কথা তিনি নিজেও জানিয়েছেন।

ডরোথি জানিয়েছেন, তিনি ব্যাঙ পছন্দ করেন। অনেক দিন আগে তার এক নাতি এমন একটা ট্যাটু করিয়ে দিতে চেয়েছিল। কিন্তু তখন সেটা সম্ভব হয়নি। এত দিনে সেই ইচ্ছা পূরণ হল।

দুরন্ত/১২আগস্ট/পিডি