‘বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা মোকাবিলা করা বড় সংকট হচ্ছে করোনা’

দুরন্ত ডেস্ক:

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাটি এখন পর্যন্ত যতোগুলো ব্যাধির ক্ষেত্রে বৈশ্বিকভাবে জরুরি অবস্থা জারি করেছে তার মধ্যে করোনাভাইরাস সবচেয়ে গুরুতর বলে জানান বলে মন্তব্য করেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) প্রধান টেড্রোস আডানোম গেব্রিয়াসুস।

এর আগে ইবোলা প্রাদুর্ভাব নিয়ে দুইবার, জিকা, পোলিও এবং সোয়াইন ফ্লু নিয়ে বৈশ্বিকভাবে জরুরি অবস্থা জারি করেছিল সংস্থাটি।

জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত সারা পৃথিবীতে এক কোটি ৬৬ লাখের বেশি করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন, যাদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে সাড়ে ছয় লাখের বেশি মানুষের।

সর্বশেষ পরিস্থিতি বিশ্লেষণের জন্য এ সপ্তাহেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এমারজেন্সি কমিটির সভা আহ্বান করবেন জানিয়ে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান বলেন, ‘বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে জনস্বাস্থ্য পরিস্থিতি বিবেচনা করে ৩০ জানুয়ারি যখন আমি জরুরি অবস্থা ঘোষণা করি। তখন চীনের বাইরে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল একশোর কম এবং কোনো মৃত্যুও ছিল না।’ সূত্র: বিবিসি।

তিনি আরও বলেন, ‘কোভিড-১৯ আমাদের পৃথিবী বদলে দিয়েছে। এটি সারা দুনিয়ার সব মানুষ, কম্যুনিটি ও সব জাতিকে এক জায়গায় নিয়ে এসেছে। আবার পরস্পরের থেকে বিচ্ছিন্নও করেছে।’

করোনা রোগীর সংখ্যা গত ছয় সপ্তাহে প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে উল্লেখ করে টেড্রোস আডানোম গেব্রিয়াসুস বলেন, ‘সীমান্ত বন্ধ করে, অর্থনীতি ক্ষতি সহ্য করে বিশ্বব্যাপী দীর্ঘদিন জরুরি অবস্থা জারি রাখা সম্ভব নয়। তবে, কোনো দেশে নতুন করে প্রাদুর্ভাব দেখা দিলে লকডাউন দিতে হবে। কিন্তু সেটি হতে হবে সংক্ষিপ্ত, ছোট ছোট ভৌগলিক এলাকায় ও কার্যকর।’

দুরন্ত/২৮জুলাই/পিডি